২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং, শনিবার

বাফুফের হঠকারী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানাল ঠাকুরগাঁওবাসী

আপডেট: জুলাই ২১, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

গৌতম চন্দ্র বর্মন, ঠাকুরগাঁও:  জেএফএ কাপ অনুর্ধ-১৪ জাতীয় নারী চাম্পিয়ানশীপ ফাইনাল খেলার পূর্বমুহুর্তে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) হঠকারী সিদ্ধাস্তের কারণে ফাইনালে অংশ নিতে দেয়া হয়নি ঠাকুরগাঁও নারীদলকে।

বাফুফের এমন সিদ্ধান্তের কারনে মানববন্ধন ও সমাবেশের মাধ্যমে প্রতিবাদ জানিয়েছে ঠাকুরগাঁওয়ের ক্রীড়াপ্রেমিরা।

ঠাকুরগাঁও নাগরিক অধিকার আন্দোলনের আয়োজনে রোববার দুপুরে শহরের চৌরাস্তা মোড়ে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিবাদ সমাবেশে নাগরিক আন্দোলনের বক্তারা ও জেলার ক্রীড়াপ্রেমিরা জানান, বাফুফের ষড়যন্ত্র, স্বেচ্ছাচারীতা ও হঠকারী সিদ্ধান্তের ফলেই আমরা ফাইনালে খেলতে পারিনি।

ফাইনাল খেলতে পারলে আমরাই চাম্পিয়ন হতাম। এছাড়াও ময়মনসিংহ ফুটবল টিমের কাছে বাফুফে কেনো জিম্মি তা আমাদের বোধগম্য নয় । কোন ধরনের তদন্ত ছাড়াই ফাইনাল খেলার ১ ঘন্টা পূর্বে এমন সিদ্ধান্তে ঠাকুরগাঁও নারী ফুটবল টিমকে অপমান করেছে তারা।

ফিরে আসা ঠাকুরগাঁও নারী ফুটবলাররা জানান, বাফুফের অভিযোগ উঠেছিলো চারজন খেলোয়াড়ের বিরুদ্ধে। যেটা তারা প্রমাণও করতে পারেনি। আমাদের মধ্যে চারজন খেলোয়াড়কে বাদ দিয়ে ফাইনাল খেলার সুযোগও দেওয়া হয়নি। মাঠে প্রতিবাদ করতে গেলে ঘরে তালাবন্ধ করে রাখা হয়েছিলো আমাদের। আমরা এটার বিচার চাই।তবে ক্রীড়াপ্রেমিদের অভিযোগ ঠাকুরগাঁও নারী ফুটবলারদের সাথে বাফুফে অন্যায়ভাবে এমন লঙ্কাকান্ড ঘটালেও ঠাকুরগাঁও জেলা ক্রীড়া সংস্থা বিষয়টি নিয়ে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।

প্রসঙ্গত, জেএফএ কাপ অনূর্ধ্ব-১৪ নারী ফুটবলের সেমিফাইনালে ময়মনসিংহকে হারিয়ে ফাইনালে উঠে ঠাকুরগাঁও দল। ফাইনালে উঠলেও বাফুফের বাইলজের নিয়মে বাদ পড়ে যায় দলটি। গত শুক্রবার (১৯ জুলাই) কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত জেএফএ কাপ অনূর্ধ্ব-১৪ নারী ফুটবলের ঘটনাবহুল ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন হয় রংপুর। টাইব্রেকারে তারা ৪-২ গোলে হারায় ময়মনসিংহকে।

নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্য ছিল। তবে খেলার ১ ঘন্টা আগে বাইলজের অযুহাত না দেখালে ফাইনালে রংপুরের বিপক্ষে ময়মনসিংহ দলের পরিবর্তে খেলার কথা ছিলো ঠাকুরগাঁও দলের।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন